ইসরাইল ও মুসলিম বিষয়ক এ তথ্য আমরা কজনে জানি?

ইসরাইলে ২০১৬-তে মোট মুসলিম জনসংখ্যা ছিল 1,454,000 জন, মানে মোট জনসংখ্যার ১৭% (২০২১ এ ২১.৪৫%)। ইসরাইলে মসজিদের ৩০০ ইমাম ও মুয়াজ্জিনকে সরকারি তহবিল থেকে বেতন পরিশোধ করা হয়। বর্তমানে ইসরাইলে মসজিদের সংখ্যা ৪০০। ২৬,০০০ মুসলিম শিক্ষার্থী ইসরাইলের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ালেখা করে। ১,৭০০ মুসলিম ইসরাইলি সামরিক বাহিনিতে কাজ করে। আরবি ও হিব্রু হচ্ছে ইসরাইলের দাপ্তরিক সরকারি ভাষা। ইসরাইলি সংবিধান অনুসারে মুসলিমসহ প্রত্যেক নাগরিক সেখানে তার ধর্ম, ভাষা, শিক্ষা ও সংস্কৃতির অধিকার রক্ষা করতে পারে। দেশটির সুপ্রিমকোর্টের একজন বিচারক হচ্ছেন প্যালেস্টাইনি আরব।
:
সংসদে ১২০ আসনের মধ্যে মুসলিম সাংসদ ১৭ জন। ৪-জন আরব সাংসদের নাম হ্চছে যথাক্রমে Azmi Bishara, Jamal Zahalka, Wasil Taha এবং Mohammed Miari, প্রথম আরব মহিলা এমপির নাম হচ্ছে Hussniya Jabara, যিনি ১৯৯৯ সনে ইসরাইলি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ইসরাইলে ৬.১% মানে ৫৬,৩৬২ জন সরকারি চাকুরে হচ্ছে আরব। Ali Yahya নামের আরব মুসলিমকে ইসরাইল ফিনল্যান্ডে তার রাষ্টদূত নিয়োগ করেন, পরবর্তীতে তিনি গ্রিসে ইসরাইলি রাষ্টদূত হন। ২০১১ সনে আরব মুসলিম Jamal Hakroush কে deputy Inspector-General in the Israeli Police হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হয়। Major General Hussain Fares, commander of Israel’s border police, and Major General Yosef Mishlav, head of the Home Front Command এরা দুজনেই এসেছে আরব দ্রুজ মুসলিম পরিবার থেকে। হয়তো খুঁজলে আরো এমন তথ্য পাওয়া যাবে। আসলে কি আমরা পুরো বিষয়টা জানি ভেতরের ইসরাইলকে?

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *