২ মিনিটে হাজার বছরের বিবর্তনের প্রমান!

কুকুর যে নেকড়ে থেকে এসেছে এই নিয়ে বৈজ্ঞানিকভাবে কোন দ্বিমত নেই। প্রায় ২০,০০০ থেকে ৪০,০০০ বছর আগে আমাদের (হোমোস্যাপিয়েন্স) কোন পূর্ব পুরুষেরাই সেটা করেছেন ৷ ঠিক কবে থেকে, কোথায়, কিভাবে, সেটা যদিও এখনো পুরোপুরি জানা হয়ে উঠেনি। বলা হয়ে থাকে কুকুর খুব সম্ভবত এক্সিডেন্টলি ডোমেস্টিকেটেড হয়েছে । কোন একটা সময়ে মানুষ “হান্টার গেদারার ” ছিল। মানে শিকারী জীবন এবং বেঁচে থাকার জন্য পুরোপুরি প্রকৃতির উপর নির্ভর করা, তার সাথে সাথে যাযাবর জীবন যাপন করতো। সেই সময়ে হতে পারে এই সকল উল্ফদের কোন প্রজাতিরা মানুষের শিকারের রেখে যাওয়া বা ফেলে দেওয়া অবশিষ্ট অংশ খাওয়ার জন্য মানুষের সাথে সাথে থাকায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ে, এভাবেই মানুষের ইতিহাসে সবচাইতে বিশ্বস্ত বন্ধু কুকুর মানুষের কাছাকাছি আসে। মানুষ ধরে বেধে উল্ফদের কুকুর বানিয়েছে ব্যাপারটা এত সহজ নয়।

ডোমেস্টিকশানের ফলে কুকুরের মধ্যকার হিংস্রভাবটা ধীরে ধীরে কমে গিয়েছিল।

দুই, এক জেনারেশনে না বরং অনেক গুলো জেনারেশানের কেয়াফুল ব্রিডিং এর ফলেই এটা হয়েছে৷ তার অন্যতম কারন মানুষের কাছাকাছি আসার ফলে তাদের কষ্ট করে শিকার করার প্রয়োজন পড়তো না, শিকারের ঝামেলা না থাকায় ধীরে ধীরে দাঁতে পরিবর্তন আসতে শুরু করেছিল, শারীরিক গঠনে পরিবর্তন এসেছিল । কুকুরের এই জেনেটিক ভিন্নতা লক্ষ করেছিলেন বিবর্তন তত্ত্বের জনক চার্লস ডারউইন। এটার পাশাপাশি তিনি আরো লক্ষ করেছিলেন ইংল্যান্ডের কবুতর চাষী দের, কবুতর চাষীদের সিলেক্টিভ ব্রিডিং এর ফসলই হচ্ছে আজকের নতুন নতুন সব কবুতরের প্রজাতি। ডারউইন তার নাম দিলেন “ডোমেস্টিক সিলেকশান ” বা আর্টিফিশিয়াল সিলেকশান। তিনি তার “অরিজিন অফ স্পিশিজ” বইয়ে এই নিয়ে একটা পুরোপুরি চ্যাপ্টারই লিখে ফেললেন। আজকে আমরা আমাদের চারপাশে যত কুকুর দেখি সবই এভাবেই এসেছে, কখনো আমাদের নিজেদের অজান্তে আবার কখনো প্রয়োজনে আমরা নতুন নতুন কুকুরের প্রজাতি তৈরি করেছি।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে তাহলে আজকে নেকড়ে কে ধরে বাসায় বেঁধে রাখলে তারাও কি পোষ মানবে ? উত্তর হচ্ছে না ! কারন হাজার বছরের সিলেক্টিভ ব্রিডিং এর ফলেই আজকের কুকুরেরা বিবর্তিত হয়েছে, তাই এরকম ভাবে হুট করেই বন্যপ্রানীকে ডোমেস্টিকেটেড করা যায় না, রিসার্চ অনুযায়ী যদি কোন নেকড়ে কে আপনি খাওয়া দেন ৷ তাহলে সে পরেরবার আপনার কাছে ভিড়তে পারে, বা আপনাকে দেখে রেসপপ্স করবে হয়তো , কিন্তু সে কুকুরের মত আচরন করবে না কারন তার ভিতরে বন্য স্বভাব । তাই যারা প্রশ্ন করেন নেকড়ে থেকে কুকুর আসলে নেকড়ে এখনো নেকড়ে আছে কেন তাদের উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করলাম মাত্র।

এছাড়াও বিভিন্ন কুকুরের এনাটমি দেখলে এই ব্যাপারে আমরা আরো বেশি নিশ্চিত হতে পারি৷

কুকুরের এই প্রজাতি বিবর্তিত হতে প্রায় ২০,০০০ থেকে ৪০,০০০০ হাজার বছর লেগেছিল, মানে ৪০,০০০ বছর আগে আমরা আধুনিক কোন কুকুরের ফসিল পাই না।

Canid পরিবারের মধ্যে তিনটি অন্যান্য উপপরিবার পাওয়া যায়, যারা কিনা এতদিনে বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছে। Borophaginae Hesperocyoninae এবং  caninae

এই canis পরিবারের মধ্যে আছে wolfs, Dogs, coyotes, jackles etc। নিচে সবচাইতে ছোট কুকুর আর সবচাইতে বড় কুকুরের ছবি দেওয়া হলো।

পৃথিবীর কোন প্রানীর মধ্যে এমন কোন বায়োলজিক্যাল মেকানিজম নেই যেটি আমাদের অথবা অন্য কোন প্রানীর শরীরে পরিবর্তনে বাঁধা দেয়, এইসব পরিবর্তন তৈরি হয় জেনেটিক ড্রিফট, সারভাইভাল, ন্যাচারাল সিলেকশান, ক্রোমোজমাল ক্রস ওভার, ডিসেন্ট ইউথ মডিফিকেশান, মিউটেশান, আইসোলেটেড পপুলেশান ইত্যাদি উপায়ে । কুকুরের ক্ষেত্রে আমরা আর্টিফিশিয়ালি সিলেকশান করে সেই মেক্যানিজম গুলোকে তরান্বিত করেছি।

একি ভাবে বিভিন্ন প্রাইমেটদের মধ্যে কার জেনেটিক ডাইভার্সিটি অনেক ধরনের হোমিনিড প্রজাতির জন্ম দিয়েছে, এবং তাদের কোন একটির থেকেই আমরা হোমোস্যাপিয়েন্সরা বিবর্তিত হয়েছি।

তথসূত্র

** www.sciencedaily.com/releases/2017/07/170718113516.htm

** wikipedia.org/wiki/Borophaginae

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *